কিশোরীকে নিয়ে উধাও মাদকসেবী

শফিউল আলম,রাউজান। রাউজান পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের গনিহাজী পাড়া লাভলীর মাতার কলোনীতে ভাড়া বাসা নিয়ে স্বামী পরিত্যাক্ত মহিলা ঝরনা বেগম এক কিশোর ছেলে আলমগীর এক কিশোরী কন্যা ফরাজনা আকতারকে নিয়ে বসবাস করেন । স্বামী পরিত্যক্ত মহিলা ঝরণা আকতার এলাকার মানুষের দ্বারে দ্বাওে ভিক্ষা করেন । ঝরণা বেগমের কিশোর পুত্র অল্প বয়সে রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন । ঝরনা বেগমের কিশোরী কন্যা ফারজানা আকতারকে ফুসলিয়ে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার নিশ্চিন্তাপুর এলাকার মোহাম্মদ আলমগীরের পুত্র মাদক সেবি নঈম উদ্দিন গোপনে বিয়ে করে গত দু,মাস পুর্বে । এই বিয়ে নঈম উদ্দিনের পরিবারের সদস্যরা মেনে নেয়নি । মাদক সেবী নঈম উদ্দিন ফারজনা আকতারকে নিয়ে ঝরণা বেগমের ভাড়া বাসায় এসে আশ্রয় চাইলে, ঝরণা রেগম তাদেরকে তার বাসায় আশ্রয় দেয়। নঈম উদ্দিন কোন কাজ করতোনা । বাসায় বসে প্রতিনিয়ত মাদক সেবন করতো বলে অভিযোগ করেন ঝরণা বেগম । ঝরণা বেগম ভিক্ষা করে যে টাকা রোজগার করতো ঐ টাকা থেকে নঈম উদ্দিনকে টাকা দিতো হতো । ভিক্ষা করা টাকা নিয়ে প্রতিনিয়ত মাদক ক্রয় করে বাসায় বসে মাদক সেবন করতো বলে ঝরণা বেগম জানান। গত ১৬ মে বৃহস্পতিবার ঝরণা বেগম ভাড়া বাস থেকে বের হয়ে ভিক্ষা করতে গেলে মাদক সেবী নঈম উদ্দিন কিশোরী ফারজানা আকতারকে নিয়ে উধা ও হয়ে যায় । অনেক খোজাখুজির পর ফারজানা আকতারের কোন হদিস না পেয়ে ঝরণা বেগম এই বিষয়ে রাউজান থানায় অভিযোগ করেন ।