মায়ের সঙ্গে অভিমান করে ছেলের আত্মহত্যা

বোয়ালখালীতে মায়ের সঙ্গে অভিমান করে মো. ওয়াজেদ হাসান (১৮) নামের এক মাদ্রাসা ছাত্র আত্মহত্যা করেছে।

সোমবার (৪ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ১টার দিকে উপজেলার পূর্ব গোমদন্ডীর সৈয়দ কমর আলী মিয়াজীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

সে একই এলাকার শামিমা আক্তারের ছেলে।
স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর শেখ আরিফ উদ্দিন জুয়েল জানান, সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ৮টার দিকে ওয়াজেদ হাসান ভাত খেয়ে ঘর থেকে বের হয়।

এসময় তার মা তাকে বাইরে যেতে নিষেধ করেছিলেন। বলেছিলো গভীর রাতে দরজা খুলবেন না। এরপর সে প্রতিদিনের ন্যায় ঘর থেকে বেরিয়ে যায়। তার দুই সৎ ভাইদের নিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন তার মা। রাতে আর ঘরে ফিরে আসেনি সে। মঙ্গলবার সকালে ঘরের বারান্দায় ওয়াজেদ হাসানের গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান স্বজনরা।
কাউন্সিলর শেখ আরিফ উদ্দিন জুয়েল বলেন, ওয়াজেদের পিতা দিদারুল আলমের সঙ্গে ডিভোর্সের পর তার মা শামিমা আক্তার প্রবাসী আবদুস সালামকে বিয়ে করেন। আবদুস সালাম বর্তমানে বিদেশে রয়েছেন। ওয়াজেদ হাসান গোমদন্ডী সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষার্থী।

বোয়ালখালী থানার উপপরিদর্শক রফিকুল ইসলাম বলেন, ১৮ বছর বয়সী এক কিশোর আত্মহত্যা করেছে। সুরতহাল শেষে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। আত্মীয় স্বজনের সঙ্গে কথা বলে জানাতে পেরেছি, মায়ের সঙ্গে অভিমান করে সে আত্মহত্যা করেছে।