শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন সর্বস্তরের জনতা

বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি , ২০১৯ :

আজ অমর একুশে ফেব্রুয়ারি। বাঙালির মননে অনন্য মহিমায় ভাস্বর চিরস্মরণীয় একুশে ফেব্রুয়ারি। ইতিহাসের পাতায় রক্ত পলাশ হয়ে ফোটা সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার, সফিউর, আউয়াল, অহিউল্লাহর রক্তে রাঙানো অমর ২১শে ফেব্রুয়ারি আজ। রক্তস্নাত ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিবহ মহান শহীদ দিবস। একই সঙ্গে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রথম প্রহরে চট্টগ্রামের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষাশহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন সর্বস্তরের জনতা।

একুশের প্রথম প্রহরে বুধবার (২০ ফেব্রুয়ারি) রাত ১২টা ১ মিনিটে অমর একুশের প্রথম প্রহরে পুলিশের স্বশস্ত্র অভিবাদন দিয়ে শুরু হয় পুষ্পস্তবক অর্পণ।

কালজয়ী গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’ গেয়ে সারিবদ্ধভাবে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানান সর্ব স্তরের জনতা।

প্রথমে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন ও রাউজানের সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী।

পরে একে একে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এমএ সালাম, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম, বিভাগীয় কমিশনার আবদুল মান্নান, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের উপ-মহাপরিদর্শক খন্দকার গোলাম ফারুক, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পু্লিশ কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান, জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন, পুলিশ সুপার নুরেআলম মিনাসহ সরকারি বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তারা।
ভাষাশহীদদের স্মরণে শহীদ মিনারে আ জ ম নাসির উদ্দিনসহ সর্বস্তরের জনতা, ছবি: বাংলানিউজফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের নেতৃবৃন্দ।

এ ছাড়া আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সহযোগী সংগঠন, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ছাত্র, যুব, শ্রমিক, কৃষক সংগঠনের নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধা জানালে ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় শহীদ মিনারের বেদি।

এদিকে মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শহীদ মিনার ও আশেপাশের এলাকা ঘিরে নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। মোতায়েন করা হয়েছে ১ হাজার ২০০ পু্লিশ সদস্য।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ‘শহীদ মিনার এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সবাই সুশৃঙ্খলভাবে শহীদ মিনারে ফুল দিচ্ছেন। কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।’