কোটা পদ্ধতি বাতিলের পরিপত্র ‘অবৈধ’ ঘোষণা করে চার সপ্তাহের স্থিতাবস্থা

চলমান কোটাবিরোধী তীব্র আন্দোলনের মধ্যে আজ আপিল বিভাগ এ বিষয়ে নতুন আদেশ জারি করেছেন। সরকারি চাকরির প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণিতে কোটা পদ্ধতি বাতিলের পরিপত্র ‘অবৈধ’ ঘোষণা করে চার সপ্তাহের স্থিতাবস্থা দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

এ আদেশের পরেও শিক্ষার্থীরা তাদের আন্দোলন চলমান রেখেছেন। ‘বৈষম্য বিরোধী ছাত্র সমাজের’ ব্যানারে ঐক্যবদ্ধ হওয়া শিক্ষার্থী ও চাকরি প্রত্যাশীরা আজ সকাল সন্ধ্যা সর্বাত্মক ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি পালন করছে। সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের এই ঘোষণা আসার পরে রাজপথে থাকা শিক্ষার্থীদের অনেকে খুশি হলেও চার সপ্তাহ পর কি হবে তা নিয়ে অনেকে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। চূড়ান্ত কোনো ঘোষণা আসার আগ পর্যন্ত আন্দোলনে ঢিল দিতে নারাজ তারা।

এ বিষয়ে মানবজমিনের সঙ্গে কথা হয় আন্দোলনের অন্যতম সমন্বয়ক হাসনাত আব্দুল্লাহর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আপিল বিভাগ আপাতত যে আদেশ দিয়েছেন এতে আমরা স্বাগত জানাই। এটি সাময়িক সময়ের জন্য হলেও স্বস্তির। তবে আমাদের দাবি এখনো বাস্তবায়ন হয়নি। আমরা কোটার যৌক্তিক সংস্কারের কথা বলেছিলাম, বাতিলের কথা নয়। আমরা আশা করি দ্রুত সেই যৌক্তিক সংস্কারের জন্য নির্বাহী বিভাগ কার্যকর পদক্ষেপ নেবেন।
বিজ্ঞাপন
সেই দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।’ পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত রাজপথে শিক্ষার্থীরা থাকবেন বলেও জানান তিনি।

আপিল বিভাগের এই আদেশের পরেও আন্দোলনের কঠোরতা অব্যাহত থাকবে কিনা? এ প্রশ্নের জবাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই শিক্ষার্থী বলেন, আমরা আজ সন্ধ্যা ৭ টায় সংবাদ সম্মেলন ডেকেছি। সেখানে আমাদের পরবর্তী কর্মসূচি জানিয়ে দেয়া হবে।