নজরুল জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলের জন্য কাজ করে গেছেন

চবিতে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫ তম জন্মজয়ন্তী উদ্যাপন
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় নজরুল গবেষণা কেন্দ্রের উদ্যোগে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৫ তম জন্মজয়ন্তী উদযাপিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে ১১ জুন সকালে চবি ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ মিলনায়তনে এক বিশেষ সেমিনার ও সংগীতানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ আবু তাহের। এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চবি উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) প্রফেসর ড. মোঃ সেকান্দর চৌধুরীর ও চবি উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) প্রফেসর বেনু কুমার দে। সেমিনারে মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর। সেমিনারে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন চবি বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ মহীবুল আজিজ ও প্রফেসর ড. মোহাম্মদ শেখ সাদী। অনুষ্ঠান সভাপতিত্ব করেন চবি নজরুল গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আনোয়ার সাঈদ। সেমিনার শেষে সংগীত পরিবেশন করেন ছায়ানট (কলকাতা) এর সভাপতি ও বিশিষ্ট নজরুল সংগীত শিল্পী সোমঋতা মল্লিক।
উপাচার্য তাঁর বক্তব্যে নজরুল জন্মজয়ন্তী উপলক্ষ্যে আগত অতিথিবৃন্দসহ উপস্থিত সকলকে স্বাগত ও আন্তরিক শুভেচ্ছা জানান। তিনি বলেন, “কবি কাজী নজরুল ইসলাম এর পরিচিতি বহুমাত্রিক। তিনি আমাদের জাতীয় কবি। তাঁর জীবনাদর্শন যেন এক উজ্জ্বল আলোকবর্তিকা। বহুমাত্রিক প্রতিভাধর এ কবির কবিতা, গল্প, সাহিত্য, নাটক, সংগীত, প্রবন্ধ জয় করেছে বাঙ্গালীর হৃদয়। দারিদ্র্য, সামাজিক বৈষম্য, শোষণ-বঞ্চনা, ধর্মীয় গোঁড়ামির বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন সর্বদা সোচ্চার। লেখনীর মাধ্যমে কবি নজরুল অন্যায়ের বিরুদ্ধে এবং সত্য ও সুন্দরের পক্ষে সংগ্রাম করে গেছেন।” মাননীয় উপাচার্য আরও বলেন, ‘তারুণ্য, উদ্যম, প্রেম, ভালবাসা, সাম্য ও বিদ্রোহ নজরুলের জীবনে যেন নিবিড়ভাবে জড়িত। দ্রোহ, ভালোবাসা ও মানবতার কবি তাঁর জীবনে জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলের জন্য কাজ করে গেছেন।’ প্রসঙ্গক্রমে মাননীয় উপাচার্য বলেন, “কবি নজরুলের বিদ্রোহী, প্রতিবাদী, চেতনামূলক গান, কবিতা বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে।” তিনি তরুন প্রজন্মকে নজরুলের জীবনাদর্শ ধারণ, লালন ও চর্চার মাধ্যমে মানবতাবাদী মানুষ হিসেবে গড়ে উঠার আহবান জানান।
অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট ও সিন্ডিকেট সদস্যবৃন্দ, শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ, কলেজ পরিদর্শক, হলসমূহের প্রভোস্ট, বিভাগীয় সভাপতি এবং ইনস্টিটিউট ও গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালকবৃন্দ, শিক্ষকবৃন্দ, অফিস প্রধানবৃন্দ, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, শিক্ষার্থীবৃন্দ, বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ এবং সুধীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী পার্থ প্রতীম মহাজন ও নাজরাতুল নাঈম তিভা।