ইজিবাইক ও ব্যাটারীচালিত যানবাহনের লাইসেন্সের দাবি

মহান মে দিবস উপলক্ষে রিকশা, ব্যাটারী রিকশা-ভ্যান ও ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদ, চট্টগ্রাম জেলা শাখার উদ্যোগে লাইসেন্স ও নীতিমালা প্রদানের দাবিতে কাঠগড় চড়িহালদা মোড়ে সুমাইয়া কনভেনশন সেন্টারে সকাল ১০টায় সমাবেশ ও সমাবেশ পরবর্তী সুসজ্জিত মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদ, চট্টগ্রাম জেলা শাখার সদস্য সচিব মনির হোসেনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কমরেড রাজেকুজ্জামান রতন-কেন্দ্রীয় সভাপতি, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট, খালেকুজ্জামান লিপন, সভাপতি – ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদ, কেন্দ্রীয় কমিটি, ডা.মনীষা চক্রবর্তী-উপদেষ্টা, ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদ, আল কাদেরী জয়-বাসদ চট্টগ্রাম জেলা ইনচার্জ, আকরাম হোসেন-সাধারণ সম্পাদক, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট, চট্টগ্রাম জেলা, ইজিবাইক সংগ্রাম পরিষদ পতেঙ্গা থানার সংগঠক জামাল উদ্দিন, মো. সোলাইমান, নাসির উদ্দিন, মহি উদ্দিন, শামীম হোসেন সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। সমাবেশ পরিচালনা করেন বাসদ, চট্টগ্রাম জেলা সদস্য আহমদ জসিম এবং গণসঙ্গীত পরিবেশনা করেন জেলা সদস্য মুবিনুল হক সাব্বির।

সমাবেশে বক্তারা বলেন, ১৮৮৬ সালের ১মে আমেরিকার শিকাগো শহরের হে মার্কেটে ৮ ঘন্টা কাজ, ৮ ঘন্টা বিনোদন ও ৮ ঘন্টা বিশ্রামের দাবিতে শ্রমিকের রক্তে রঞ্জিত পথে গড়ে উঠেছিল মহান মে দিবস। শ্রমজীবী মানুষ সেদিন শুধু শ্রমের অধিকার চায় নি, চেয়েছিল জীবনের মর্যাদা ও বাঁচার অধিকার। শ্রমজীবী মানুষ এই সভ্যতার কারিগর। তাদের শ্রমে ও ঘামে নির্মাণ হয় সমস্ত সম্পদ। কিন্তু পুঁজিবাদী সমাজের বৈষম্য ও শোষণমূলক ব্যবস্থার কারণে সে হয় সম্পদহীন ও নিঃস্ব। তার থাকে না শ্রমের মালিকানা, থাকে না মানসম্মত জীবনের নিশ্চয়তা। তাই প্রতিবছরের মতো এবছরও শ্রমজীবী ও মেহনতি মানুষের ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামের চেতনায় মহান মে দিবস পালন হচ্ছে।
সংগ্রাম পরিষদ গত ১০ বছর যাবৎ নকশা আধুনিকায়ন ও নীতিমালা প্রণয়ন করে ব্যাটারিচালিত যানবাহনের লাইসেন্স প্রদানসহ ৬ দফা দাবিতে আন্দোলন পরিচালনা করে আসছে। হাইকোর্টের আদেশ বাতিল হওয়ায় ইজিবাইকসহ ব্যাটারিচালিত যানবাহন চলাচলের জন্য সরকার প্রস্তাবিত খসড়া ‘থ্রি-হুইলার ও সমজাতীয় মোটরযানের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও নিয়ন্ত্রণ নীতিমালা ২০২১’-এর দ্রুত চূড়ান্ত ও কার্যকর করতে আর কোনও আইনগত বাধা নেই। ঢাকাসহ সারাদেশে অবৈধ কার্ড ব্যবসায়ী ও অসাধু পুলিশ মিলে সুপ্রিম কোর্টের আদেশ আসার পর মহাসড়কের বিভ্রান্তমূলক ব্যাখ্যা ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের নামে বিভিন্ন সড়কে ও অলিগলি থেকে ইজিবাইক, রিকশাসহ ব্যাটারিচালিত যানবাহন আটক, ডাম্পিং, রেকারিং-এর নামে চালক-মালিকদের কাছ থকে অবৈধভাবে অর্থ আদায়সহ নানা হয়রানি করেছে।

বক্তারা আরো বলেন, আমরা দয়া চাই না, অধিকার চাই। বর্তমানে ব্যাটারীচালিত যানবাহন দেশের অর্থনীতিতে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছে। প্রায় ৫০-৬০ লাখ চালক সহ দুই- আড়াই কোটি মানুষের জীবন ও জীবিকা এই খাতের উপর নির্ভরশীল। অথচ আমরা দেখি অসহায় চালকদের হয়রানি, নির্যাতন, অবৈধ রেকারিং ও জরিমানার শিকার হতে হচ্ছে। এর থেকে মুক্তি পেতে হলে আমাদের মিলিত সংগ্রামই একমাত্র গ্যারান্টি।
তাই ১১মে মহান মে দিবসের ১৩৮তম বার্ষিকীতে ব্যাটারীচালিত ইজিবাইক ও যানবাহনের চালক-মালিকদের ন্যায্য আন্দোলনে এগিয়ে আসার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানাই।
সমাবেশ শেষে একটি সুসজ্জিত মিছিল সমাবেশস্থল থেকে কাঠগড় মোড় গিয়ে শেষ হয়।